আজাদ হিন্দ ফৌজ-র প্রতিষ্ঠাতা বিপ্লবী কর্মবীর রাসবিহারী বসু-র জীবনী | Rash Behari Bose biography in Bengali

 আজাদ হিন্দ ফৌজ-র প্রতিষ্ঠাতা বিপ্লবী রাসবিহারী বসু-র জীবনী 
 Rash Behari Bose biography in Bengali 

Rash Behari Bose biography in Bengali

Biography of the revolutionary Rashbehari Bose, the founder of the Azad Hind Fauj


ভারতে ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের  অগ্রগণ্য বিপ্লবী নেতৃত্ব রাসবিহারী বসু (Rashbehari Bose)  রইলো শ্রদ্ধার্ঘ্য। ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মির অন্যতম সংগঠক হিসেবে তিনি আমাদের মাঝে অমর হয়ে রয়েছেন। 
২৫ মে ১৮৮৬ সালে জন্ম ভারতের বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর। যিনি ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের নতুন প্রাণ দিয়েছিলেন।  পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার সুবলদহ-তে জন্ম হয়েছিল বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর। রাসবিহারী বসু বাল্যকাল থেকে স্বাধীনতা সংগ্রামের দিকে ঝুঁক ছিল । ইংরেজদের বিরুদ্ধে রাসবিহারী বসু  দিল্লি ষড়যন্ত্র, বেনারস ষড়যন্ত্র এবং লাহোরের গাদর ষড়যন্তের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন । লর্ড হার্ডিংয়ের উপর যে হামলা হয় ১৯১২ সালের ২৩ ডিসেম্বর  সেই ঘটনার  মাস্টারমাইন্ড ছিলেন বিপ্লবী রাসবিহারী বসু। 

 Rash Behari Bose biography in Bengali 

  • রাসবিহারী বসুর জন্ম:- 25 মে, 1886

  • স্থান:- গ্রাম- সুবলদহ (Subaldaha), ব্লক - রায়না-I ; জেলা:- বর্ধমান ( বর্তমান পূর্ব বর্ধমান); পশ্চিমবঙ্গ

  • রাসবিহারী বসুর পিতা:- বিনোদ বিহারী বসু

  • রাসবিহারী বসুর মাতা:- ভূবনেশ্বরী দেবী 

  • রাসবিহারী বসুর স্ত্রী :- তোসিকো ( Tosiko) [ Daughter of Aizo Soma & Kokko Soma]

  • রাসবিহারী বসুর পুত্র:- মাসাহিদে (Masahide) বসু// ভারতচন্দ্র বসু ( জন্ম:- 1920, মৃত্যু:- 1924; মাত্র 24 বছর বয়সে মারা যান দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়।)

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • রাসবিহারী বসুর কন্যা:- তেসুকো ( Tetsuko) ( জন্ম:- 1922)

  • রাসবিহারী বসুর বাল্যকাল:- 1889 সালে মাত্র 3বছর বয়সে মাতৃ বিয়োগ হলে ঁভূবনেশ্বরী দেবীর কাকিমা ভামা সুন্দরী দেবী ও দাদামশাই কালীচরণ মহাশয়ের তত্ত্বাবধানে হুগলি জেলার সদর চন্দননগরে শৈশবস্থা ও বাল্যাবস্থা অতিবাহিত হয়।

  • রাসবিহারী বসুর শিক্ষা:- Dupleix College, চন্দননগর। তরুণ রাসবিহারী ব্রিটিশ এবং ফরাসি এই দুই সংস্কৃতির দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন। 1789 ফরাসি বিপ্লব গভীর ভাবে দাগ কাটে তরুণ দেশপ্রেমিক রাসবিহারী বসুর মনে।
  • পরবর্তী কালে চিকিৎসা শাস্ত্র ( Medical science) এবং অধিযন্ত্রিক ( Engineering) -এ ডিগ্রি লাভ করেন যথাক্রমে France এবং Germany থেকে।

  • দেশভক্তির বীজ রোপণ:-
  • বিখ্যাত সাহিত্যিক, কবি তথা দার্শনিক ঋষি বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের 'আনন্দ মঠ' উপন্যাস টি  রাসবিহারীর মনে গভীর রেখাপাত করেছিল। এছাড়া কবি নবীন সেনের 'পলাশির যুদ্ধ' এবং তৎকালীন বিপ্লবী আন্দোলনের প্রাণপুরুষ সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ের জ্বালাময়ী ভাষণ দেশভক্তির বীজ রোপণ করেছিল। বিশেষত স্বামী বিবেকানন্দের পত্রাবলী তরুণ  বিপ্লবীর মনে বারুদ হয়ে উঠেছিল। এছাড়া চন্দননগরে থাকা কালীন তাঁর শিক্ষক  চারুচাঁদ মহাশয়ের চরমপন্থী বিপ্লবের মনোভাব  ও তাঁকে স্বাধীনতা আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ করে ছিল।

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • রাসবিহারী বসুর চাকুরী জীবন:- 
  • বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা মাঝপথে থামিয়ে তাঁর কাকার দেওয়া Fort William-এ চাকুরীতে যোগ দেন। পরবর্তীকালে পিতার ইচ্ছায় শিমলাতে Government press -এ বদলি নেন। তিনি সেখানে copy holder-এর কাজে নিযুক্ত ছিলেন এবং English type writting -এর কাজ দেখাশোনা করতেন। কিছুদিন পরে তিনি Kasauli-তে Pasteur Institution -এ চলে আসেন। রাসবিহারী বসু তাঁর এই কাজে সন্তুষ্ট ছিলেন না।
  • পরবর্তী সময়ে সহকর্মীদের উপদেশে রাসবিহারী বসু দেরাদুনে প্রমথনাথ ঠাকুর এর ঘরে গৃহ শিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত হন।‌ পরে Forest Research Institute, Dehradun-এ ক্লার্কের পদে যুক্ত হন এবং পরে প্রধান ক্লার্কের দায়িত্বপ্রাপ্ত করেন।

  • 🔹বিপ্লবী আন্দোলনের সূত্রপাত:-
  • 🔘1905-এর বঙ্গভঙ্গ বিরোধী আন্দোলন ও তার পরবর্তী কালে স্বাধীনতা আন্দোলনের ধারাবাহিক ঘটনা রাসবিহারীর মনে গভীর রেখাপাত করেছিল। বাঘা যতীনের ছত্রছায়ায় বিপ্লবী আন্দোলনে অংশ নেন রাসবিহারী।

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • 🔘তৎকালীন ভারতের ভাইসরয় লর্ড হার্ডিন্জ্ঞের উপর বিখ্যাত বোমা হামলা:-
  • 1912; 23 ডিসেম্বর:- চন্দননগরে এক গুপ্ত বৈঠকে শ্রীশ ঘোষ ( অরবিন্দ ঘোষের শিষ্য) বোমা হামলার প্রস্তাব রাখেন। রাসবিহারী বসুর উপর দায়িত্ব পরে; বসু দুটি শর্ত দিয়েছিলেন-- (১)তিনি নিজে শক্তিশালী বোমার সরবরাহ করবেন এবং (২) ব্রিটিশ পুলিশের নজরদারিতে আসেনি এমন কোনো কমবয়সী যুবকের দরকার।
  • চন্দননগরে 16 বছরের তরুণ বসন্ত বিশ্বাস-- রাসবিহারী বসুর ভৃত্য পরিচয়ে নিজেকে গোপন রেখেছিলেন  প্রমথনাথ ঠাকুরের দেরাদুনের বাগানবাড়িতে। 1911সালে দীপাবলির দিন যখন চারিদিকে আঁতসবাজির শব্দ সেইদিন রাতভর মহড়া চলল বোমা হামলার। সবাই পুরো একবছর প্রতীক্ষা করেছিল। 
  • 🔘হামলার দিন:- ব্রিটিশ ভারতের রাজধানী কলকাতা থেকে দিল্লি স্থানান্তরিত করা হলে দিল্লির চাঁদনী চকে ভাইসরয়ের সংবর্ধনা শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়েছিল। বসন্ত বিশ্বাস ছদ্মবেশে মেয়েদের পোশাক পরিধান করে রাসবিহারীর বান্ধবী সেজে মহিলা সংরক্ষিত আসনে বসেন। চাঁদনী চকের পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক এর সন্নিকটে Clock Tower এর কাছে হার্ডিন্জ্ঞের হাতি আসলে, বসন্ত বোমা নিক্ষেপ করেন। কোনো কারণ বশত বোমা লক্ষ্য ভ্রষ্ট হয় ; কিন্তু লর্ড হার্ডিন্জ্ঞ গুরুতর জখম হয়। সেই সময় রাসবিহারী ছুটে বসন্তকে পোশাক পরিবর্তন করে নিতে বলে। তারপর বিক্ষিপ্ত জনতার মধ্যে মিশে গিয়ে ব্রিটিশ পুলিশের চোখ এড়িয়ে পালিয়ে যায় বসন্ত।
  • রাসবিহারী সেই দিন রাতে ট্রেনে দেরাদুন চলে আসেন এবং প্রতিদিনের মতো পরের দিন অফিসে আসেন। সেই দিন দেরাদুনে অবস্থিত ব্রিটিশ নাগরিকদের নিয়ে একটি সভার আয়োজন করেন এবং ভাইসরয়ের উপর বোমা হামলার ঘটনার কঠোর নিন্দা করেন। ( লর্ড হার্ডিন্জ্ঞ তার লেখা বই 'My Indian years ' এ লিখেছেন One who on earth can imagine that he(Bose) was the same person who had masterminded & executed the most outstanding revolutionary action.)
  • ব্রিটিশ সরকার রাসবিহারী বসুর মাথার মূল্য 7500 রেখেছিল।

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • ▫️গদর পার্টি:- ইংল্যান্ড ও কানাডাতে থাকা ভারতীয়দের নিয়ে ব্রিটিশ বিরোধী সশস্ত্র আন্দোলন গড়ে তোলাই ছিল এর উদ্দেশ্য। 'গদর' শব্দের অর্থ বিপ্লব।
  • ◼️1914 সালে অনেক বিস্ফোরক পদার্থ আমেরিকা ও কানাডা থেকে এসেছিল; যার নেপথ্যে ছিলেন রাসবিহারী। গদর বিষ্ণু গোপাল পিংলে রাসবিহারীকে গদর পার্টিকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন।
  • ◼️1915 জানুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে আসন্ন বিপ্লবের ঘোষণা করেন বেনারসের এক গুপ্ত সভা থেকে। 
  • রাসবিহারী ছিলেন বিপ্লবের শরীর ও মস্তিষ্ক ( brain & brawn of the revolution)। তাঁর সুদক্ষ নেতৃত্ব ও সংগঠন কুশলতা ছিল বিপ্লবের সহায়ক। Lord Hardingeএর উপর বোমা হামলার পর পুলিশের নজরে চলে আসেন রাসবিহারী; তাই সময়ে সময়ে নিজে ছদ্মবেশ ধারণ করে ব্রিটিশ পুলিশের চোখে ধূলো দিয়ে নাকের উপর দিয়ে বেড়িয়ে গেছেন অনেকবার।
  • ◼️1915_Feb 21st:- সশস্ত্র বিপ্লবের সূচনা হলে সীমান্তে ব্রিটিশ অফিসাররা গদরের সমস্ত outpost গুলো নিজেদের অধীনে নিয়েছিল। পরে এই বিপ্লব ব্যর্থ হয় এবং রাসবিহারী বসু ব্রিটিশ অফিসারের পোশাক পরে বেরিয়ে যান।

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • ▫️জাপানে রাসবিহারী- ক্রমশঃ ভারতের স্বাধীনতার জন্য লড়াই:-
  • 1915 May'12:- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দূর সম্পর্কের আত্মীয়ের পরিচয় দিয়ে P N Tagore( প্রমথনাথ ঠাকুর) ছদ্মনামে জাপানের উদ্দেশ্যে রওনা হন।
  • ◼️May'22:- জলপথে সিঙ্গাপুর পৌঁছন।
  • ◼️June:- টোকিও শহরে আসেন।
  • 1915-1918:- এই তিন বছর রাসবিহারী বসু যাযাবরের জীবন পালন করে ছিলেন।  17বার তিনি তাঁর বাসস্থান পরিবর্তন করেছিলেন। ব্রিটিশ সরকার জাপানের ওপর চাপ দিচ্ছিল রাসবিহারী বসুকে ব্রিটিশ সরকারের কাছে হস্তান্তরিত করার জন্য। আর এই সময়ে নাকামুরা বেকারী প্রতিষ্ঠানের কন্যা তোসিকোর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং জাপানের নাগরিকত্ব লাভ করেন।
  • উল্লেখযোগ্য রাসবিহারী জাপানী শিখে জাপানে সাংবাদিকতার চাকরি করতেন এবং ভারতের দৃষ্টিভঙ্গির উপর জাপানী ভাষায় অনেক পুস্তক রচনা করেন। 
  • ◼️1942,March 28 to 30:-
  • রাসবিহারী বসুর প্রচেষ্টায় টোকিও শহরে Political issues নিয়ে discussion রাখেন।

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • ▫️আজাদ হিন্দ ফৌজ// INDIAN NATIONAL ARMY (INA) -এর প্রতিষ্ঠা:-
  • 28march - এর conference-এ India Independence League গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।  
  • মালয় ও বার্মাতে জাপানীদের কাছে বন্দি ভারতীয় সেনাদের উৎসাহিত ও আগ্রহ করা হয় ভারতের স্বাধীনতার জন্য একত্রিত হয়ে ভারতে অবস্থিত ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ভারত মাকে দাসত্ব থেকে মুক্তি করার জন্য। রাসবিহারী বসুর প্রচেষ্টায়  আজাদ হিন্দ ফৌজ ও INA প্রতিষ্ঠিত হয় capt. মোহন সিং ও সর্দার প্রিয়তম সিং এর সহযোগিতায়।  পরবর্তী কিছু দিন পর সুভাষচন্দ্র বসু কে আজাদ হিন্দ ফৌজের সভাপতি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
  • ◼️1942, 1st September:- INA/ আজাদ হিন্দ ফৌজের -এর বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

  • বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী

  • ◼️21st Jan,1945:- 
  • মাত্র 59বছর বয়সে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষে মহান দেশপ্রেমিকের   মহাপরিনির্বাণ হয় টোকিও শহরে।
  • জাপানে সরকার তাদের দেশের The second order of merit of The Rising Sun-এ মহান দেশনায়ককে সম্মানিত করেন।
বিপ্লবী রাসবিহারী বসু জীবনী বাণী
রাসবিহারী বসুর চাকরির দরখাস্তপত্র 

রাসবিহারী বসুর সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন ? Frequently Asked Questions about Rashbehari Bose.

Q1. রাসবিহারী বসুর স্ত্রী - র নাম কি ?

মহান বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর স্ত্রীর নাম সোমা পরিবারের তোশিকো সোমা বা তোশিকো, তিনি একজন জাপানী মহিলা ছিলেন। ১৯১৮ সোনে  ৯ জুলাই মিস  তোশিকো সোমা এবং রাসবিহারী বসুর গোপন বিয়ে হয়েছিল। 

Q2. রাসবিহারী বসুর মৃত্যু কবে হয় ?

বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর মৃত্যু হয় ১৯৪৫ সালের ২১ জানুয়ারি জাপানের টোকিও শহরে। দেশের স্বাধীনতার লক্ষ্যে জাপান যাত্রার পরে রাসবিহারী বসু আর ঘরে ফেরেননি।

Q3. কে কবে আজাদ হিন্দ ফৌজ গঠন করেন ?

১৯৪৩ সালের ২১ অক্টোবর আজাদ হিন্দ ফৌজ কিন্তু সুভাষচন্দ্র গঠন করেননি, করেছিলেন রাসবিহারী বসু৷ রাসবিহারী বসু ১৯২৩ সালে জাপানে চলে যান৷

Q4. আজাদ হিন্দ সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল কোথায়?

১৯৪৩ সালের ২১ অক্টোবর আজাদ হিন্দ সরকার প্রতিষ্ঠিত হয় জাপানে । আজাদ হিন্দ ফৌজ কিন্তু সুভাষচন্দ্র গঠন করেননি, করেছিলেন রাসবিহারী বসু৷ আজাদ হিন্দ ফৌজের নেতৃত্বে দেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু।

Q5. রাসবিহারী বসুর ছদ্মনাম কি?

রাসবিহারী বসুর ছদ্মনাম প্রিয়নাথ ঠাকুর এবং নামটি পাসপোর্ট অফিস থেকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আত্মীয় রাজা প্রিয়নাথ ঠাকুর ছদ্মনামে পাসপোর্ট সংগ্রহ করেন।

Q6. আজাদ হিন্দ ফৌজ প্ৰতিষ্ঠাতা কোন?

১৯৪৩ সালের ২১ অক্টোবর আজাদ হিন্দ ফৌজ কিন্তু সুভাষচন্দ্র গঠন করেননি, করেছিলেন রাসবিহারী বসু৷ রাসবিহারী বসু ১৯২৩ সালে জাপানে চলে যান৷

Q7. আজাদ হিন্দ বাহিনী সর্বপ্রথম ভারতের যে শহরটি দখল করে সেটি হল?

আজাদ হিন্দ বাহিনী সর্বপ্রথম ভারতের যে শহরটি দখল করে সেটি হল আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ। আজাদ হিন্দ বাহিনী সর্বপ্রথম ভারতের যে শহরটি দখল করে ১৯৪৩ সালে। 

নবীনতর পূর্বতন