Positive motivational story in bengali | ইনটারভিউ অনুপ্রেরণামূলক কাহিনী

 ইনটারভিউ অনুপ্রেরণামূলক কাহিনী

Positive motivational story in bengali 

ইনটারভিউ অনুপ্রেরণামূলক কাহিনী Positive motivational story in bengali
ইনটারভিউ অনুপ্রেরণামূলক কাহিনী

Motivational story in Bengali: আজ সুন্দর অনুপ্রেরণামূলক শিক্ষণীয় ছোটগল্প আপনাদের সাথে তুলে ধরবো।  সফলতা এবং অনুপ্রেরণার গল্প আপনাকে জীবনের ছোটগল্পের এক অন্যরকম অনুভূতি দেবে। আপনি আত্মবিশ্বাস এবং শিক্ষামূলক ভাবে এই গল্পকে জীবন গঠনে কাজে লাগাতে পারেন। জীবন গঠনের জন্য এরকম ছোট ছোট শিক্ষামূলক গল্প যা সফলতার ক্ষেত্রে অনেক অনুপ্রেরণা যোগায় একপ্রকার মোটিভেশন ছোটগল্পের কাজ করে।

কথায় কথায় বাবা - মা এটা কর সেটা কর, এটা করিসনা, সেটা করিসনা বলে টিক্ - টিক্ টিক্ - টিক্ করতেই থাকেন । অসহ্য লাগে । মনে হয় যেন সব ছেড়েছুড়ে দিয়ে বার হয়ে যাই যেদিকে দূ-চোখ যায় । ঈশ্বর জানেন কবে বাপ-মার রোজকার এই খিচিরমিচির - টোকাটাকির  থেকে নিঃষ্কৃতি পাবো ‌! মানে, -- আমিও এমনটাই ভাবতাম । পাই একটা চাকরি, পালাবো ঘর ছেড়ে । রোজ রোজ এতো কথা শুনতে হবে না আর । এমনই ভাবতাম । হয়তো আমার মতো অনেকেই এমনটাই ভাবেন ।

তবে আমরা মনে হয়, এই রকমটা ভেবে একেবারেই ঠিক করিনা । আমরা বুঝিনা, যে এই নিত্য তিরিশের কিচকিচানি থেকে নিজেদের অজান্তেই আমরা কেমন করে সংস্কারিত হয়ে উঠি । সহবত শিক্ষা পাই স্বাভাবিক ভাবেই । এই বিষয়েই আমার পরিচিত এক ভাইয়ের অভিজ্ঞতা শোনাচ্ছি : --  

ইনটারভিউ :

বহু দৌড়ঝাঁপ করে শেষমেশ আজকে একটা ইনটারভিউ দিতে গেছি এক অফিসে । পাস করে বেরোনোর পর, এইটাই ছিল আমার প্রথম চাকরির ইনটারভিউ । ঘর থেকে বেরোনোর সময় ভাবছিলাম, উফ্ ভগবান, চাকরিটা একবার লেগে যাক, বাপ - মার ঐ পুরোনো বাড়িটা ছেড়ে শহরের অন্য কোথাও একটা বাসা ভাড়া নিয়ে থাকা যাবে । এমন স্বার্থপরের মতো চিন্তা করে ঠিক করছিলাম না ভুল, তা মনে আসেনি একবারও, কিন্তু এমনটাই কিছু ভাবছিলাম, এটা ঠিক । সকাল থেকে রাত্তির পর্যন্ত টিক্ টিকবাজি লেগেই থাকে যে ।

সক্কালবেলা ঘুম ভেঙ্গে উঠতেই, --- এই বিছানা গুছোও, চলো তক্ষুনি বাথরুম, -- দু-দন্ড আড়মোড়া ভাঙ্গবো যে সে উপায় নেই ! বাথরুম থেকে বার হয়েছি কি হইনি,-- এ্যাই, কল ঠিক করে বন্ধ করেছিস ? গামছাটা ধুয়ে মেলে দিলি না অমনিই এক পাশে ছেড়ে এলি ?

ব্রেকফাস্ট করে ঘর থেকে বার হতে যাব কি ব্যাস্, -- পাখা বন্ধ করেছিস ? চালু রেখে আসিসনি তো ?--- উফ্ !! আর কতো শুনতে হবে ? চাকরিটা পাই একবার...!!

 আজ ইনটারভিউ দিতে গিয়ে দেখি, অনেক ক্যানডিডেট আমার আগেই এসে বসে আছে । বস নাকি তখনও আসেনি, সবাই অপেক্ষা করছে । দশটা কিন্তু বেজে গেছে !

বসে গেলাম আমিও, বসের জন্য অপেক্ষায় । বসে আছি তো আছিই, বেশ কিছুক্ষণ কেটে গেছে । এদিক সেদিক দেখতে গিয়ে দেখি, বেলা এগারোটাতেও আলোগুলো জ্বলছে, একি রে বাবা ! মার কথা মনে পড়লো, -- লাইট নিভিয়েছিস ? উঠে গিয়ে লাইটগুলো নিভিয়ে দিয়ে এলাম নিজেই, আর কেউ তো গ্রাহ্যই করছে না দেখছি !

 জল তেষ্টা পেয়েছিল বসে থেকে থেকে । জল খেতে গিয়ে দেখি, ওয়াটার কুলারটা থেকে জল টপকাচ্ছে, ধুর বাবা ! এমন করে কল খুলে রাখে নাকি ? বাবার বকুনি মনে পড়ে গেল । -- কল বন্ধ করেছিস ঠিক করে ?

ওয়াটার কুলারটা আমিই ঠিক করে বন্ধ করে দিলাম । বসে আছি, তো একটা স্টাফ এসে জানালো দোতলায় হবে ইনটারভিউ । চলো ওপরে । দেখি সিঁড়ির আলোগুলোও সব জ্বলছে তখনও । কি রে ভাই ! এই অফিসে কি লোকজন কিছুই দেখে না ? আমার বাড়িতে হলে তো এতোক্ষণ হাজার বার মা খিটখিট করতেন, -- লাইটগুলো বন্ধ করিসনি তো ঘরের কথা যেমনি মনে পড়া, সিঁড়ির আলোর স্যুইচ্ খুঁজে বন্ধ করে দিলাম আলোগুলো, অকারণে কেন জ্বলবে ? ওপরের অফিসে ঢুকতে গিয়ে দেখি, রাস্তার মধ্যিখানে একটা চেয়ার কে জানি বসিয়ে রেখেছে, এতটুকু জ্ঞানগম্যি যদি থাকে ! একপাশে সরিয়ে রাখলাম চেয়ারখানা । সরিয়ে রেখে, ওপরের হল ঘরে ঢুকলাম । ইনটারভিউ ইতিমধ্যেই দেখি শুরু হয়ে গেছে ।

শিক্ষামূলক ভাবে এই গল্পকে জীবন গঠনে কাজে লাগাতে পারেন। জীবন গঠনের জন্য এরকম ছোট ছোট শিক্ষামূলক গল্প যা সফলতার ক্ষেত্রে অনেক অনুপ্রেরণা যোগায়

 এক একজন করে ইনটারভিউ দিতে ভেতরে ঢুকছে, আবার প্রায় তখনই বেরিয়ে আসছে । এ আবার কি ব্যাপার ! জিজ্ঞেস করতে জানা গেল, ভেতরে বস ভদ্রলোক কিছুই জিজ্ঞেস করছেন না, ব্যস্ ! রিজ্যুমে ফাইলটা জমা নিচ্ছেন, আর পত্রপাঠ বিদায় দিচ্ছেন । এ আবার কি রে ভাই !!

একসময় আমার ডাক পড়লো । ঢুকলাম বসের অফিসে । বসকে ফাইলটা দিতে ফাইল খুলে একবার চোখ বুলিয়ে হাসি মুখে বললেন, -- কবে থেকে জয়েন করছেন বলুন ।

 আমি তো অবাক ! বলেন কি এ্যাঁ !! ভদ্রলোক আমার সাথে ঠাট্টা করছেন নাকি ? আমার চেহারার রং উড়তে দেখে উনি এবার বললেন, -- কি হলো ? আরে ভাই আপনার সাথে মোটেও মজা করছিনা । সত্যিই বলছি । আপনি চাকরিটা পেয়ে গেছেন, কবে থেকে জয়েন করতে পারবেন বলুন ।

 -- ওহো ! আপনাকে কোনো প্রশ্ন করলাম না, তাই তো ? সে তো আমি কাউকেই কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করিনি । আমি স্রেফ এখানে বসে সিসিটিভিতে ক্যানডিডেট-দের ওপর নজর রাখছিলাম, কার কি রকম ব্যবহার, কে কি করছে, এই দেখছিলাম । সকলেই তাই দেখলো, যা আপনি দেখেছেন, -- কই ? কেউ তো আপনার মতো লাইট পাখা আপনা থেকেই গিয়ে বন্ধ করেনি !

 ধন্য আপনি, ধন্য আপনার মা বাবা, যাঁরা আপনাকে এমন সুন্দর সহবত শিক্ষা দিয়েছেন । আপনার মধ্যে আমরা একজন সংস্কারযুক্ত মানুষ দেখলাম । আরে ভাই, যার সেল্ফ ডিসিপ্লিন বলে কিছু নেই, সে কতই না চালাক - চতুর হোক, জীবনের দৌড়াদৌড়িতে সে কোনদিনই সফল হতে পারবে না ।

 ঘরে ফিরে বাবা - মাকে প্রনাম করে তাঁদের সব বললাম, তাঁদের আশীর্বাদ ভিক্ষা করলাম । আমার মা বাবার সৎ শিক্ষা দেওয়ার জন্যই আজ আমি চাকরিতে নির্বাচিত হলাম, চাকরিটা পেলাম । জানলাম, -- লেখাপড়ার চেয়েও সামাজিক গুণ, সহবত শিক্ষার মূল্য অনেক বেশি ।

 সংসারে সংস্কার অনেক জরুরী আর মূল্যবান ।

 বাবা মার সম্মান জরুরী ।

 জীবনে আর কিছু থাক না থাক, স্বাভিমান অনেক জরুরী ।


নবীনতর পূর্বতন