Daily history in Today ইতিহাসের পাতায় আজকের দিনে 11 February

 Daily history in Today ইতিহাসের পাতায় আজকের দিনে  11 February 


Point Bangla Daily history in Today 

ইতিহাসের আজকের এই দিনে ছুটির দিনগুলি আমরা পরিবারের সাথে আরাম করার এবং ভালো সময় উপভোগ করার একটি দিন । বেসরকারি কোম্পানিগুলোর ছুটির দিনের থেকে সরকারের চেয়ে ভিন্ন রকম । রবিবার সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য নিয়মিত ছুটির দিন যেখানে বেশিরভাগ বেসরকারি কোম্পানি প্রতি মাসের শনি ও রবিবার বন্ধ থাকতেও পারে । এই নিয়মিত ছুটির পাশাপাশি, বেসরকারী এবং সরকারী উভয় ক্ষেত্রে কর্মরত সমস্ত কর্মচারী সরকারী ছুটি এবং জাতীয় ছুটি পান। তার সঙ্গে অক্টোবর  ইতিহাসের আজকের এই দিনে (Today in Bengal history ) জন্ম হয়েছে বিভিন্ন ব্যক্তির এবং মৃত্যু হয়েছিল।

৫১২৩ কলিযুগাব্দ ।। ২০৭৮ বিক্রম সংবৎ ।। ১৯৪৩ শকাব্দ ।।  ৫৩৬ শ্রীচৈতন্যাব্দ ।। ২৫৬৫ বুদ্ধাব্দ ।। ২৮ শে মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ।। ১১ ই ফেব্রুয়ারি ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ ।।


যে বিশিষ্ট ভারতীয়দের আজ জন্মবার্ষিকী :

১ | ব্রহ্মবাদী ব্যক্তিত্ব , সাংবাদিক ও স্বাধীনতা সংগ্রামী ব্রহ্মবান্ধব উপাধ্যায় (১১/০২/১৮৬১) ।

২ | কবি ও ছড়াকার, ছন্দের জাদুকর সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত(১১/০২/১৮৮২)।

৩ | সাহিত্যিক ও স্বাধীনতা সংগ্রামী গোপাল হালদার (১১/০২/১৯০২) ।

৪ | প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা ও কবি বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত (১১/০২/১৯৪৪) ।

                                  🕉️গঙ্গাপুত্র সম্পাদনা 

যে বিশিষ্ট ভারতীয়দের আজ প্রয়াণ দিবস :

১ | 'সহভাগী লোকতন্ত্র' ও 'একাত্ম মানব দর্শন-এর' উদ্গাতা, ভারতীয় জনসঙ্ঘের প্রথম সাধারণ সম্পাদক রাষ্ট্রঋষি পন্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায় জী (১১/০২/১৯৬৮) ‌।

২ | কবি ও সাহিত্য সমালোচক সজনীকান্ত দাস (১১/০২/১৯৬২) ।

৩ | বিশিষ্ট অধ্যাপক ও ইতিহাসবিদ রমেশচন্দ্র মজুমদার (১১/০২/১৯৮০) ।


➖➖➖➖➖➖➖➖

▪️১৭৫২ - বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন কর্তৃক যুক্তরাষ্ট্রের ১ম হাসপাতাল হিসেবে পেনসিলভানিয়া হাসপাতালের কার্যক্রম উদ্বোধন।

▪️১৭৯৪ - যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটের ১ম অধিবেশন জন সাধারণের জন্ম উন্মুক্ত করা হয়।

▪️১৯১৬ - জন্ম নিয়ন্ত্রণ সম্বন্ধে বক্তৃতা দেয়ায় ইমা গোল্ডম্যান গ্রেফতার হন।

▪️১৯১৯ - জার্মানীর প্রেসিডেন্ট হিসেবে এসপিডি দলের ফ্রেডরিক এবার্ট নির্বাচিত হন।

▪️১৯৩৭ - ইউনাইটেড অটো ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের কর্ম বিরতি কে জেনারেল মোটর্স স্বীকৃতি দেয়ায় কর্ম বিরতির সমাপ্তি ঘটে।

▪️১৯৪৩ - দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে জেনারেল ডুইট আইসেনহাওয়ার ইউরোপের মিত্র বাহিনীর সেনাপ্রধান হিসেবে মনোনীত হন।

▪️১৯৫৩ - ইসরাইলের সাথে সোভিয়েট ইউনিয়নের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে।

▪️১৯৫৩ - গ্রীস এবং তুরস্কের মধ্যে সাইপ্রাসের লিমাসোলে যুদ্ধ শুরু হয়।

▪️১৯৬৪ - তাইওয়ান ফ্রান্সের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করে।

▪️১৯৭৮ - চীন কর্তৃক এরিস্টটল, শেক্সপিয়ার এবং ডিকেন্সের উপর গবেষণা কর্ম নিষিদ্ধ ঘোষণা হয়।

▪️১৯৭৯ - আয়াতুল্লাহ রুহুল্লা খোমিনী'র নেতৃত্বে ইরানে ইসলামিক শাসন প্রতিষ্ঠা হয়।

▪️১৯৯০ - দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ টাউনের বাইরে ভার্স্টার জেলখানা থেকে ২৭ বৎসর রাজনৈতিক বন্দীত্ব শেষে মুক্তি পান অবিসংবাদিত নেতা নেলসন মান্ডেলা।

🟣#জন্ম:

➖➖➖➖➖

▪️১৮৪৭ - মার্কিন উদ্ভাবক এবং ব্যবসায়ী টমাস আলভা এডিসন জন্ম গ্রহণ করেন।

▪️১৮৮২ - বাঙালি কবি ও ছড়াকার সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত জন্ম গ্রহণ করেন।

▪️১৯১৫ - মার্কিন গণিতবিদ ও কম্পিউটার বিজ্ঞানী রিচার্ড হ্যামিং জন্ম গ্রহণ করেন।

▪️১৯৩৮ - নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটার বেভান কংডন জন্ম গ্রহণ করেন।

🟢#মৃত্যু:

➖➖➖➖➖➖

▪️৬৪১ - বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের সম্রাট হেরাক্লিউস এর মৃত্যু হয়।

▪️১৯৪৮ - সোভিয়েত চলচ্চিত্র পরিচালক এবং চলচ্চিত্র তাত্ত্বিক সের্গে আইজেনস্টাইন  এর মৃতু হয়।

▪️১৯৭৪ - বাংলাদেশী বাঙালি সাহিত্যিক সৈয়দ মুজতবা আলী  ইন্তেকাল করেন।

সুরসম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকরের (জন্ম : ২৮শে সেপ্টেম্বর, ১৯২৯, ইন্দোর / মৃত্যু : ০৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২২, মুম্বাই)  ইহলোকের সময় সমাপ্ত হলো । সুদীর্ঘ আশিবছরের সুকৃত জীবনের অবসান হলো,  দক্ষিণ এশিয়ার অগনিত মন্ত্রমুগ্ধ শ্রোতা হারালেন তাঁদের সকলের প্রিয়, সকলের বরেণ্য, সাক্ষাৎ মা সরস্বতীর কন্যাসম অত্যন্ত সুললিত কন্ঠের প্রতিভাশালী এক সঙ্গীত শিল্পীকে । তাঁর ব্রহ্মলোক যাত্রার ফলে ভারতীয় সঙ্গীতমহল হারালো এক বিরল স্বভাবের শিল্পীকে ।

সব মৃত্যুই শোকের, আবার মৃত্যু যে শুধুমাত্র শোকের, তাও নয় ‍। মৃত্যু জীবনের পূর্ণতারই আর এক নাম । লতা জী-র জীবনটি যেমন সুন্দ‍র ছিল, তাঁর মৃত্যুও তেমনই সুন্দর । ক'জন মানুষ ৯৩ বৎসরের এমন বিরল সুন্দর ধার্মিক জীবন পান ? প্রায় পাঁচ (৫) প্রজন্মের মানুষ ওনার কোকিলকন্ঠের সুরমূর্ছনা শুনেছেন । স্বাধীনতার পর থেকে এই পর্যন্ত, ভারতের মানুষ ওনার কন্ঠ শুনেই ঘুম ভেঙ্গে জেগেছেন, আবার ঘুমিয়েছেন । ভাবলেই অঙ্গ শিহরিত হয়ে ওঠে ।

ব্যক্তির পরলোক গমনের পর, তাঁর ইহলৌকিক জীবনের মণিকণাগুলি সমাজের সামনে উদ্ভাসিত হয়, জানা যায় কত না জানা কথা । চমৎকৃত হতে হয় সেই সত্যের সামনে দাঁড়িয়ে ।

যে মানুষটি ১০০০টি-রও বেশী ফিল্মে প্লেব্যাক সিঙ্গার হিসাবে, হিন্দি, মারাঠি, তামিল, কন্নড়, উর্দু, ওড়িয়া, বাংলা সমেত ৩০টি-রও বেশী ভারতীয় ভাষায় ন্যুনপক্ষে ৩০ হাজারেরও বেশী গানে তাঁর অবিস্মরণীয় সুরেলা কন্ঠের মাধুর্য উজাড় করে দিয়েছেন । অনেকেই জানেননা, যে সেই সঙ্গীত শিল্পী একজন অত্যন্ত ধার্মিক প্রকৃতির দৃঢ়প্রত্যয়ী রাষ্ট্রভক্ত মানুষ ছিলেন ! গান গাইবার সময় তিনি পায়ে জুতো পরতেন না । সঙ্গীত এবং ঈশ্বর তাঁর কাছে ছিল সম-আরাধ্য । বাড়িতে, তাঁর মা - বাবার প্রতিকৃতি ও আরাধ্য দেবতার মন্দির, এই দুটিই ছিল তাঁর কাছে সর্বপ্রধান । হরষে, বিষাদে, প্রেমে, পরিহাসে, ঈশ্বর আরাধনা বা রাষ্ট্রভক্তিতে, প্রত্যেক ভাবে স্বর্গীয় লতা মঙ্গেশকর জী-র কন্ঠস্বর হয়ে উঠেছিল ১৩০ কোটি মানুষের স্বর ।

_'জ্যোতি কলশ ছলকে...' থেকে 'দাতা সুন লে...' পর্যন্ত সুদীর্ঘ যাত্রাপথে লতা জী-র জীবনের অপরূপ সুন্দরতা এটাই ছিল যে তিনি কখনোই তাঁর কর্তব্য ও ধর্ম পালন থেকে বিচ্যুত হননি ।_

একথা অবশ্যই উল্লেখ করা প্রয়োজন, ১৯৪২ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সে মারাঠি ফিল্ম 'কিতী হসাল'-এর জন্য ওনার গান প্রথমবার রেকর্ড করা হয় । কিন্তু লতা জী যখন মুম্বাইয়ে ভারতীয় সঙ্গীত মহলে নিজের স্থান খুঁজতে যান, তখন তাঁর ঐ অননুকরনীয় চিকন আওয়াজের জন্যই তাঁকে নাকচ করে দেওয়া হয় । চিত্র-নির্মাতা শশধর মুখার্জি সেদিন কল্পনাও করতে পারেননি, যে সেই চিকন মধুর কন্ঠস্বরই পরবর্তী কয়েক প্রজন্ম ধরে সঙ্গীতজগৎ-কে মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখবে । ১৯৪৯-এ হিন্দি চলচ্চিত্র 'মহল' রিলিজ হয় । তাতে 'আয়েগা আনেওয়ালা' গানটি লতা জী গেয়েছিলেন । তখনকার দিনে প্লেব্যাক-সিঙ্গার বা পার্শ-গায়কদের নাম প্রকাশ করা হতো না, কিন্তু গানটি এমনই জনপ্রিয় হয়, যে উৎসুক শ্রোতাদের অনুরোধে আকাশবাণী স্বীকার করে যে গানটির গায়িকা হলেন লতা মঙ্গেশকর, ভারত সেদিন তার স্বর কোকিলার সাথে একাত্ম হয়ে গিয়েছিল ।

১৯৬২-র যুদ্ধের পর তাঁর গাওয়া কিংবদন্তি সঙ্গীত, 'এ্যায় মেরে বতন কে লোগোঁ' সম্ভবতঃ ততদিন প্রতিটি ভারতীয়ের অন্তরাত্মায় নাড়া দেবে যতদিন ভারতবাসী স্বাধীন স্বত্বা নিয়ে বেঁচে থাকবেন । ১৯৭১-এ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি যে শুধু অর্থসাহায্য করেছিলেন তাই নয়, 'অজন্তা শিল্পীগোষ্ঠীর' সাথে ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিমানে চড়ে বিভিন্ন স্থানে সঙ্গীত পরিবেশন করে বাঙ্গালী রিফিউজিদের জন্য তহবিল সংগ্রহ করেছিলেন, পাশাপাশি গড়ে তুলেছিলেন নবীন রাষ্ট্র বাংলাদেশের জন্য বিশ্বব্যাপী গণসচেতনতা ।

তিনি বারেবারে ভারতীয় সনাতন ধর্ম ও রাষ্ট্রীয়তার পক্ষে নিজের মত প্রকাশ করে গেছেন । এমনকি মৃত্যুপরান্ত তাঁর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার  (অন্ত : শেষ ইষ্টি : যজ্ঞ = অন্তিম যজ্ঞ) বিশেষ যজ্ঞবেদীটিও (তিন ধাপ বিশিষ্ট : ভূঃ, ভূবঃ, স্বাহা) সনাতন রীতি অনুযায়ী ব্যবস্থিত করা হয়েছিল ।

সরস্বতীর বরপুত্রী হে লতা মঙ্গেশকর জী, আপনার মতো মানুষ ন ভূতো ন ভবিষ্যতি ।

তুম্ ন জানে কিস জঁহা মে খো গয়ে.. 

আপনি ও আপনার কন্ঠস্বর  ভূ-ভারতে চিরনবীন হয়ে থাকবে । 


অন্যান্য মাসের ইতিহাসের আজকের এই দিনের ঘটনা জানতে 

ক্লিক করুন 

#Pointbangla  

#daily #history #news #bengali #instadaily #igdaily #dailylook #memesdaily #dailymemes #photooftheday #picoftheday #instapic #bestoftheday #bengaligirl #bengaliquotes #cityofjoy #bengalimemes #bengalipoem #bengalipoetry #bengalinewyear #bengaliweddings #westbengal #kolkatablogger #bengalibride #bengalibeauty #igerskolkata #dailypic #indianwear #dailyart



নবীনতর পূর্বতন